কড়া শাস্তি হোক’, হিন্দুদের গণকবর উদ্ধারের পর বলল ভারত,

কড়া শাস্তি হোক’, হিন্দুদের গণকবর উদ্ধারের পর বলল ভারত,

 

নয়াদিল্লি: মায়ানমারে হিন্দুদের গণকবর উদ্ধারের পরই হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলল ভারত। যারা এর পিছনে রয়েছে তাদের কড়া শাস্তি দিতে হবে বলে দাবি জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র রবিশ কুমার জানিয়েছেন, মায়ানমারের দেওয়া বিবৃতি অনুযায়ী ওই কবরে যাদের মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে তারা সবাই হিন্দু।

কিছুদিন আগেই রাখাইনে গণকবরের সন্ধান মিলেছে। যেখানে শুধু হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের মৃতদেহ রয়েছে। এমনটাই জানিয়েছে মায়ানমার সেনাবাহিনী। সেনাবাহিনীর দাবি, রোহিঙ্গা মুসলমান জঙ্গিরা এইসব হিন্দুদেরকে হত্যা করেছে। যদিও এর পিছনে সত্যিই রোহিঙ্গারা রয়েছে কিনা তা এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি সেনাবাহিনী। কারণ এখনও পুরোপুরি তদন্তকারী দল সেখানে পৌঁছতে পারেনি। তবে মনে করা হচ্ছে, ঘটনার পিছনে রয়েছে রোহিঙ্গারাই।

বিবিসি বাংলাতে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, রাখাইনে গত পঁচিশে অগাস্ট থেকে হিংসা শুরু হবার পর এখন পর্যন্ত চার লাখ ত্রিশ হাজারের বেশি রোহিঙ্গা মুসলমান পার্শ্ববর্তী বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। মায়ানমার সেনাবাহিনীর ওয়েবসাইটে পোস্ট করা এক বিবৃতি থেকে যানা যাচ্ছে, উত্তরাঞ্চলীয় রাখাইন প্রদেশের একটি গ্রাম থেকে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা একটি গণকবর খুঁড়ে মোট আঠাশটি মৃতদেহ বের করে এনেছে। এদের সবাই হিন্দু ধর্মাবলম্বী, বেশীরভাগই মহিলা। রাষ্ট্রসংঘের শরণার্থী সংস্থার প্রধান ফিলিপ্পো গ্র্যান্ডি বিবিসিকে বলেছেন, নির্মম হত্যাকাণ্ড, ধর্ষণ এবং বাড়িঘর আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়ার কারণে রোহিঙ্গারা আতঙ্ক আর উদ্বেগে দিন কাটাচ্ছে। রাখাইনে চলমান হিংসাকে ‘জাতিগত নিধন’ বলে বর্ণনা করেছে রাষ্ট্রসংঘ। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে মায়ানমার সরকার।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *