জাঁকিয়ে শীতে পেটে পড়ুক এসব পিঠে !

কলকাতা: বেশিরভাগ বাড়িতেই পিঠে মানে পাটিসাপ্টা, পুলি পিঠে, মালপোয়া, চুসির পায়েস ৷ জানেন কি? বাংলাদেশ থেকে আমদানি হওয়া এই ঘরোয়া মিষ্টি পিঠে রয়েছে ১০১ রকমের ৷ যার কিনা ১০১ আলাদা নামও ৷ প্রত্যেকটি পিঠেই আলাদা স্বাদের ৷ সেই ১০১ পিঠে থেকে তিনটে একেবারে অন্যরকম পিঠের রেসিপি রইল

 

 

১) কলার পিঠে

উপকরণ: পাকা কলা ৪-৫টি, বাদাম গুঁড়ো ৩ টেবিল চামচ, নুন সামান্য, নারকেল কোরা ১-২ কাপ, খেজুরের রস পরিমাণমতো, সয়াবিন তেল (ভাজার জন্য) ১-২ কাপ, ঘি ১ চা-চামচ, চালের আটা ১-২ কাপ।

প্রণালী: খেজুরের রস জ্বাল দিয়ে কলা চটকে নিয়ে নুন, বাদাম গুঁড়ো, নারকেল কোরা, ঘি ও চালের আটা দিয়ে মাখিয়ে একটু ঘন গোলা তৈরি করে নিন। এরপর ডুবো তেলে ভেজে নিন। ভাজা কলার পিঠা রসে দিয়ে ১০-১৫ মিনিট পর পরিবেশন করা যায়।

২) তেলেভাজা পিঠে অথবা পাকান পিঠে

উপকরণ: চালের গুঁড়া আধা কেজি, খেজুরের গুড় ৫০০ গ্রাম, আটা এক পোয়া, তেল আধা কেজি।

প্রণালী: খেজুরের গুড় আর এক গ্লাস জল জ্বাল দিয়ে নিতে হবে। তারপর এতে চালের গুঁড়ো ও আটা দিয়ে ঘন করে মিশিয়ে নিতে হবে। কড়াইতে তেল দিয়ে গরম হলে এক চামচ করে পিঠের গোলা ছেড়ে দিতে হবে। পিঠে ফুলে উঠলেই তৈরি হয়ে গেল তেলেভাজা বা পাকান পিঠে ৷

৩) গোলাপফুল পিঠে

উপকরণ: দুধ ২ কাপ, ময়দা ৩ কাপ, চিনি ৪ টেবিল চামচ, নুন সামান্য, ঘি ২ টেবিল চামচ। সিরার জন্য-চিনি ৩ কাপ জল, দেড় কাপ দারুচিনি ২ টুকরো।

প্রণালী: দুধ গরম হলে চিনি, নুন, ময়দা দিয়ে কাই তৈরি করে নিতে হবে। পরে ঠান্ডা হলে অল্প অল্প করে ঘি দিয়ে ভালো করে মথে রুটি বেলে দুই ইঞ্চি ব্যাসে গোল গোল করে কেটে গোলাপ তৈরি করতে হবে। এবার গরম ডুবোতেলে বাদামি রং করে ভেজে সিরায় ছাড়তে হবে।

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *