ঢাকার নবাবগঞ্জের বান্দুরা ইউনিয়নের সাদাপুর পূর্বপাড়া নবাবগঞ্জে দরিদ্র সংখ্যালঘুর বসতঘরে আগুনে! 

ঢাকার নবাবগঞ্জের বান্দুরা ইউনিয়নের সাদাপুর পূর্বপাড়া নবাবগঞ্জে দরিদ্র সংখ্যালঘুর বসতঘরে আগুনে! 

ঢাকার নবাবগঞ্জের বান্দুরা ইউনিয়নের সাদাপুর পূর্বপাড়া গ্রামে রাতের আঁধারে দরিদ্র সংখ্যালঘু বাবুল চন্দ্র দাসের বসত ঘর আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। বর্ষায় ইছামতি নদীর শাখা সাদাপুর খালের তীব্র ভাঙনে হারিয়েছেন তার বসত ভিটা। তাই প্রতিবেশি গেনেটের জমিতে ঘর তুলে বসবাস করছিলেন বাবুলের পরিবার। এ দুর্ঘটনায় তার পরিবার সহায়সম্বল হারিয়ে পথে বসেছে।
বাবুল চন্দ্র অভিযোগ করে জানান, সাদাপুর মৌজার সিএস ও এসএ দাগের ১২২নং দাগের ২৯ শতাংশ সম্পত্তি তার বাপ-দাদার নামে রয়েছে। ভুলক্রমে আরএস রেকর্ড ভুক্ত হয়নি। তা নিয়ে তার সঙ্গে বিরোধ চলছে সাদাপুর গ্রামের আব্দুল বাছেরের ছেলে ইসহাক গংদের সাথে। এবিষয়ে সিনিয়র সহকারী জজ আদালত (নবাবগঞ্জ) ঢাকায় রেকর্ড সংশোধনী দেওয়ানী মামলা চলমান। এমতাবস্থায় বাবুল চন্দ্রদের এলাকা ছাড়া করতে  দীর্ঘদিন যাবত্ ইসহাক গংরা ভাড়াটে বাহিনী দিয়ে মারধরসহ বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়ে আসছিল। এবিষয়ে মীমাংসার লক্ষ্যে শুক্রবার স্থানীয়ভাবে সালিশ বৈঠকে বসার কথা ছিল। সালিশির প্রধান হঠাত্ অসুস্থ হওয়ায় বৈঠক হয়নি।
বাবুল চন্দ্র আরো জানান, তার দুই ছেলে বিবাহ করায় পরিবার বড় হয়। তাই ছেলে-বউ পাশের বাড়িতে ভাড়া থাকেন। ছেলের বৌরা বাবার বাড়িতে গেলে শুক্রবার রাতে বাবুল ও তার স্ত্রী ছেলের ভাড়া ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। এর জন্য তাদের ঘর ফাঁকা ছিল। শনিবার ভোর রাতে প্রতিবেশি কালু মিস্ত্রির স্ত্রী বাবুলের ঘরে আগুন জ্বলতে দেখে চিত্কার করে। তার চিত্কারে অন্য প্রতিবেশীরা আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য এগিয়ে আসেন ততক্ষণে ঘরের আসবাবপত্র, মালামাল পুড়ে ছাই হয়ে যায়।
বাবুলের অভিযোগ- তার পৈত্রিক জমি নিয়ে বিবাদকারীরা তার ঘর পুড়িয়ে দিয়েছে। এতে তিনি আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এবিষয়ে নবাবগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে।
সাদাপুর গ্রামের মো. ইসহাক জানান, বাবুলের সাথে জমি নিয়ে মামলা রয়েছে ঠিক। তবে আগুনের বিষয়ে বলেন- ‘গায়েবের মালিক আল্লাহ’। কে বা কারা আগুন দিয়েছেন তা আমার জানা নেই। নবাবগঞ্জ থানার ডিউটি অফিসার উপ-পরিদর্শক মহির উদ্দিন বলেন, বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
সুত্র : ইত্তেফাক।

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *