দশমীতে রাজ্যের ৩০০টি স্থানে অস্ত্র পুজো করবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। ক্ষমতা থাকলে প্রশাসন আটকে দেখাক

দশমীতে রাজ্যের ৩০০টি স্থানে অস্ত্র পুজো করবে
বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। ক্ষমতা থাকলে প্রশাসন আটকে দেখাক
প্রকাশ্যে মুখ্যমন্ত্রী মমতাকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ল হিন্দু পরিষদ!!

 

দশমীতে অস্ত্র পুজো হবেই! বাংলায় মমতাকে চ্যালেঞ্জ আরএসএসের

স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিজয়া দশমীতে রাজ্যের ৩০০টি স্থানে অস্ত্র পুজো করবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। ক্ষমতা থাকলে প্রশাসন আটকে দেখাক৷ রবিবার এক বিবৃতিতে এভাবেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে কার্যত চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন বিএইচপি-র স্টেট মিডিয়া ম্যানেজার সৌরিষ মুখোপাধ্যায়৷ একই কথা জানানো হয়েছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সংঘের তরফেও।

এমনিতেই মহরমের কারনে দুর্গা পুজোর বিসর্জন পিছিয়ে দেওয়াকে কেন্দ্র করে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বিভিন্ন মহলের মত পার্থক্য তৈরি হয়েছে৷ বিশ্ব হিন্দু পরিষদের তরফে এদিন অস্ত্র পুজোর হুঁশিয়ারি দেওয়ায় গোলমালের আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷

শনিবারই নবান্নে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন, রাম নবমীর পুনরাবৃত্তি তিনি এরাজ্যে হতে দেবেন না৷ বিজয়াতে কোনও ধরনের অস্ত্র নিয়ে মিছিল করা যাবে না জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘কেউ নিয়ম ভাঙলে প্রশাসন কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করবে৷’’ মুখ্যমন্ত্রীর ওই ঘোষণার পরই এদিন এক বিবৃতিতে বিএইচপি-র স্টেট মিডিয়া ম্যানেজার বলেন, প্রশাসন আমাদের আটকাতে পারে না। অস্ত্র পুজো ভারতীয় সংস্কৃতির অংশ।

সৌরিষ বলেন, ‘‘ গোপনীয়তার কারণে আমরা এখনই স্থানের নাম প্রকাশ করছি না৷ তবে এবারে বিজয়া দশমীতে আমরা রাজ্যের ৩০০ টি জায়গায় অস্ত্র পুজো করব৷ কোথায় কোথায় এই অস্ত্র পুজো হবে তা দুর্গা পুজোর অষ্টমী বা নবমীর দিন আমরা জানিয়ে দেব৷’’ অন্যদিকে আরএসএস-য়ের রাজ্য মুখপাত্র জিষ্ণু বসু অস্ত্র পুজোর সপক্ষে সওয়াল করে বলেন, ‘‘অস্ত্র পুজো তো করতেই হবে। না হলে তো দুর্গা পুজোই হবে না। কারণ অস্ত্র পুজো না করলে মায়ের পুজোর বলি হবে কি করে?’’

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণাকে চ্যালেঞ্জ জানাতেই এই অবস্থান নিয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ ও আরএসএস৷ স্বাভাবিকভাবেই বিজয়া দশমীকে কেন্দ্র করে গোলমালের আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছে না প্রশাসন৷ পুলিশের এক পদস্থ কর্তার কথায়, ‘‘পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে এখন থেকেই রাজ্যের সর্বত্র পুলিশি নজরদারি বাড়ানো হচ্ছে৷ নজর রাখা হচ্ছে সিসিটিভি ফুটেজের৷ এছাড়াও পুজো ও বিসর্জনের জন্য প্রতিটি এলাকায় সাদা পোশাকে বাড়তি পুলিশ মোতায়েন করা হবে৷’’

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *