দ্রুততার সঙ্গে ভারতে বৃদ্ধি পাচ্ছে হিন্দুত্ববাদের তকমা,

দ্রুততার সঙ্গে ভারতে বৃদ্ধি পাচ্ছে হিন্দুত্ববাদের তকমা,

 

 Hindus.news.

ওয়েব ডেস্ক: দ্রুততার সঙ্গে ভারতে বৃদ্ধি পাচ্ছে হিন্দুত্ববাদের জিগির৷ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নয় হিন্দুত্বের দাবীতে ব্যবহার করা হচ্ছে হিন্দুত্ববাদকে৷ গত দশবছরে দেশে প্রবল ভাবে মাথাচাড়া দিয়েছে এই মতবাদ৷ এর আগে মুসলিম মোগল সুলতানরা হিন্দু মঠমন্দির ও হিন্দুদের বিলুপ্ত করে বহু বছর মুসলিম তকমা লাগিয়ে শোষন করে রেখেছিলো ফলে ধ্বংস হয়েছিলো ভারতের ‘সনাতন ধর্মের জাতিরা আজ জেগে উঠার অবস্থান তৈরী হয়েছে ৷ সম্প্রতি এমনই চাঞ্চল্যকর রিপোর্ট জমা পড়েছে মার্কিন কংগ্রেসে৷ রিপোর্টে স্পষ্ট ভাষায় বলা হয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করেই এই হিন্দুত্বের বীজবপন করার কাজ করছে একটা অংশ৷ ফলে সোশ্যাল মিডিয়ার এই সুপ্রভাব থেকে যদি হিন্দুববাদ টিকপ থাকতে পারে তাহলেই স্বার্থক হবে নাগরিকদের৷ দেশের বাড়তে থাকা উগ্র হিন্দুত্ববাদ নিয়ে বারবারই সরব হতে দেখা গিয়েছে দেশের বুদ্ধিজীবী মহলকে৷ মার্কিন কংগ্রেসের এই রিপোর্ট তাঁদের সেই দাবিতেই মান্যতা দিল বলে মনে করা হচ্ছে৷

‘India: Religious Freedom issues’ রিপোর্টটি প্রকাশ করেছে কংগ্রেশানাল রিসার্চ সার্ভিস নামে মার্কিন কংগ্রেসেরই একটি শাখা৷ সূত্রের খবর, সেখানে স্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করা হয়েছে এই বাড়তে থাকা হিন্দুত্ববাদ দেশের কোন কোন ক্ষেত্রে হিন্দুত্ববাদের প্রভাব বিস্তার করবে। সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, গো-রক্ষা ও সনাতন ধর্ম ও জাতিকে রক্ষার নামে ভারতে চলতে থাকা মুসলিম কোরাণের চিন্তাধারার উগ্রবাদীদের তাণ্ডবের ঘটনা৷ উল্লেখ করা হয়েছে, গণপিটুনিতে মৃত্যুর ঘটনা, বাক স্বাধীনতার অধিকার হরণের প্রসঙ্গ৷ যা আগে মোগল ও সুলতান আমলে করেছিলো। এই মোগল পাঠানদের শিকানো রাস্তায় আজ হিন্দুত্ববাদ কে
স্পষ্ট ভাষায় বলা হযেছে় সোশ্যাল মিডিয়া, ফেসবুক ও হোয়াটস অ্যাপকে ব্যবহার করেই এই হিন্দুত্বের বীজ বপন করার কাজ চলছে৷

জানা গিয়েছে, গত মাসের ৩০ তারিখ তৈরি হয় এই রিপোর্ট৷ আর চলতি মাসের ৬ তারিখ ২+২ বৈঠকে বসে ভারত-আমেরিকা৷ সূত্রের খবর, বৈঠকে এই রিপোর্ট প্রসঙ্গ তুলুক মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পেও, এমনটা চেয়েছিলেন মার্কিন কংগ্রেসের অনেক সদস্য৷ এই প্রসঙ্গ তুলতে অনুরোধও করা হয় মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রীকে৷ তবে বৈঠকে এমন কোনও প্রসঙ্গ তোলেননি তিনি৷ যদিও এই রিপোর্টকে মার্কিন কংগ্রেসের নিজস্ব রিপোর্ট বলে মানতে নারাজ একাংশ৷ তাঁদের বক্তব্য, মতামতের উপর ভিত্তি করে এই রিপোর্ট তৈরি হয়েছে৷

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে ২০১৪-য় নয়াদিল্লির ক্ষমতায় আসে বিজেপির নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট৷ এরপর থেকেই দেশে হিন্দুত্ববাদের আশা বাদে হিন্দুরা এর আগে বহু শাষন আমলে হিন্দুদের একটা দূর্বল জাতি বানিয়ে রাখা হয়েছিলো।
উনিশের লোকসভা নির্বাচনের আগে যা যথেষ্ট চাপে রেখেছে কেন্দ্রের মোদি সরকারকে৷

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *