পিতার হাহাকার , বোনের আর্ত চিৎকার, ভাইয়ের রক্ত, মাতার অসহায় দৃষ্টি। সে মাটি আজও ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাদে।

 

এই সেই করুণ ইতিহাস সন্তান হত্যার বুকফাটা আর্তনাদ।

 

পিতার হাহাকার , বোনের আর্ত চিৎকার, ভাইয়ের রক্ত, মাতার অসহায় দৃষ্টি।
সে মাটি আজও ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাদে

 

ভারতীয় উপমহাদেশে ইসলাম প্রসারের ইতিহাস (পর্ব-১৭)

Hindus.news 

মুসলমান পরাধীনতার যুগের ভারতবর্ষের ইতিহাস একটু মনোযোগ সহকারে অধ্যায়ন করলে দেখা যাবে যে, যখনই কোন নতুন ব্যক্তি দিল্লীর সিংহাসনে বসেছেন তখনেই তাকে রাজ্য বিস্তারের জন্য দৌয়াতে হচ্ছে। তাকে গুজরাট, রাজস্থান, মধ্যভারত ও দক্ষিণ ভারতে অভিযান করতে হচ্ছে। গোয়ালিয়র, রাজস্থান, রনথাম্ভোর, চিতোর ইত্যাদি দূর্গ দখল করতে হচ্ছে এবং সেজন্য অনেক যুদ্ধ বিগ্রহে জড়িয়ে পড়তে হয়েছে। কাজেই প্রশ্ন হল, কেন একই দূর্গ বা একই অঞ্চল বিভিন্ন বাদশাহকে বারবার জয় করবার প্রয়োজন কেন হচ্ছে? উত্তর একটাই—– মুসলমানরা কোন দূর্গ বা অঞ্চলে বেশীদিন তাদের আধিপত্য অক্ষুন্ন রাখতে সক্ষম হন নাই। স্থানীয় এসব রাজারা ক্রামাগত বিদ্রোহ করা স্বাধীনতা ঘোষনা করেছে; মুসলমান শাসনকে অস্বীকার করেছে। তাই একই অঞ্চল বারবার বাদশাহদের জয় করার প্রয়োজন হয়েছে। এই তথ্য থেকে এটাই প্রমানিত হয় যে, ভারতের হিন্দু শাক্তি আক্রমনকারী মুসলমান শক্তির সঙ্গে নিরন্তর সংঘর্ষ করেছে এবং অসংখ্য হিন্দু বীর এই সংঘর্ষে রক্ত দিয়েছে, প্রাণ দিয়েছে। বিদেশী মুসলমান শক্তিকে এক মুহূর্তেও নিশ্চিন্তে থাকতে দেননি।

তাই ড.কে.এম মুন্সী লিখেছেন—

“এ হল স্বাধীনতা রক্ষার খাতিরে নিতান্ত বালক থেকে শুরু করে মৃত্য-পথ-যাত্রী বৃদ্ধ পর্যন্ত অগনিত মানুষের বিরামহীন সংঘর্ষ, নিরন্তর বীরত্ব প্রদর্শন ও প্রাণ বিসর্জনের এক সুদীর্ঘ ইতিহাস। এ হল মাসের পর মাস, কখনো বছরের পর বছর ধরে দূর্গের অভ্যন্তরে থাকা বীর যোদ্ধাদের যুদ্ধের ইতিহাস। দূর্গ আক্রমনকারী মুসলমানদের বিরুদ্ধে শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে চলতে থাকা এক বিরামহীন সংগ্রামের ইতিহাস। এ হল সম্মান রক্ষার্থে হাজার হাজার হিন্দু নারীর জলন্ত অগ্নিতে আত্মাহুতি দেবার এক দীর্ঘ ইতিহাস। এ হল দাসত্বের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য পিতামাতার ধারা অবোধ শিশুকে কূপের জলে নিক্ষেপ করার এক করুণ ইতিহাস। এ হল অন্তহীন হামলাকারীদের নিরন্তর আক্রমণকে প্রতিহত করার জন্য দেশ ও জাতিকে রক্ষা করার জন্য তরুণ যোদ্ধাদের দ্বারা ম্ৃত সৈনিকের স্থান পূরণ করার এক বিভীষিকাময় ইতিহাস।”

আমরা সেই মাটিতে বাস করছি, যে মাটি হাজার বছর ধরে কোটি পিতার, মাতার ভাইয়ের, বোনের অশ্রুজলে সিক্ত। পিতা মাতা ভাইয়ের সমনে বোনকে টেনে নিয়ে গিয়ে হারেমে নির্লজ্জ কুকুরের মত ব্যবহার করেছে, ভাই খোজা হয়ে তাকে পাহারা দিয়েছে।
এ সেই করুণ ইতিহাস যেখানে কন্যা সন্তানের জন্মকে অভিশাপ মনে করে পিতা মাতা গঙ্গাসাগরে ভগবানের নামে উৎসর্গ করে দিয়েছে। নিজ হাতে সন্তান হত্যার বুকফাটা আর্তনাদ পিতা মাতা হাজার হাজার বছর চেপে রেখেছে।
কারন সন্তান জন্মের পর বিসর্জনের যে কষ্ট তার চেয়ে বেশী কষ্ট হবে যখন চোখের সামনে মুসলমানরা ধরে নিয়ে কুকুরের মত ব্যবহার করবে।
যেখানে দিনের পর দিন, মাসের পর মাস, বছরের পর বছর, যুগের পর যুগ, শতাব্দীর পর শতাব্দী চলেছে। হিন্দুর রক্তে হোলি খেলা, জিজিয়া, খেরাজ আদায়ের ফলে বুভূক্ষ মানুষের হাহাকার।
এ সেই মাটিতে আমরা বাস করছি, যে মাটিতে হাজার বছর ধরে মিশেছে কোটি কোটি হিন্দুর রক্ত ও অশ্রুর বন্যা, পিতার হাহাকার , বোনের আর্ত চিৎকার, ভাইয়ের রক্ত, মাতার অসহায় দৃষ্টি।
সে মাটি আজও ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাদে।

 

আমরা শুধু আগামী প্রজন্মের কাছে সঠিক তথ্য তুলে ধরার প্রয়াস করছি মাত্র এই উদ্যোগে আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
পরের পোষ্টের জন্য চোখ রাখুন এই সাইটে এবং পেইজে লাইক দিয়ে রাখুন। শেয়ার করে সবাইকে জানার সুযোগ করে দিন।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *