ফিরোজ জাহাঙ্গীর গান্ধীর জন্ম দিবসে সোনিয়া, রাহুল কেউই গেলেন না পূর্বপুরুষকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে।

 

ফিরোজ জাহাঙ্গীর গান্ধীর জন্ম দিবসে সোনিয়া, রাহুল কেউই গেলেন না পূর্বপুরুষকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে।

 Hindus.news

দেশের পূর্ব প্রধানমন্ত্রী ইন্দ্রিরা গান্ধীর স্বামী ফিরোজ খানের(গান্ধী) 12 সেপ্টেম্বর অর্থাৎ আজ জন্মদিবস। কিন্তু রাহুল গান্ধী, সোনিয়া গান্ধী বা প্রিয়াঙ্কা ভাদ্রা কেউই আজ শ্রদ্ধাঞ্জলি জানায়নি উনাকে। আর ওই নিয়েই শুরু হয়েছে বিতর্ক। অনেকে এর কারণ হিসেবে উনার নামক দায়ে করেছেন। কিছু ওয়েবসাইটের দাবি অনুযায়ী, ফিরোজ খান/ গান্ধীর আসলে সারনেম গান্ধী নাকি খান এই নিয়ে এখনো দ্বিমত রয়েছে। বলা হয় নেহেরু দেশের প্রধানমন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন,সেই অর্থেই ইন্দ্রিরা গান্ধীর স্বামীকে(ফিরোজ জাহাঙ্গীর খান) উনার নাম পরিবর্তন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। আর যেহেতু ফিরোজ বাবুর সারনামে খান ছিল এবং তিনি একজন মুসলিম ধর্মাম্বলী ছিলেন তাই গান্ধী পরিবার উনার জন্ম দিবস ও মৃত্যু দিবস পালন এড়িয়ে চলে বলে দাবি করা হয়।কারণ গান্ধী পরিবার মনে করে যদি তাদের পূর্বপুরুষের আসল ধর্ম ভারতীয়দের প্রকাশ্যে আনা হয় তাহলে ভোট ব্যাঙ্কে ঘাটতি পড়বে। কারণ গান্ধী পরিবার বেশ ভালোভাবেই ইন্দ্রিরা গান্ধীর জন্ম দিবস ও মৃত্যু দিবস পালন করলেও কখনোই

১৯১২ সালে ১২ সেপ্টেম্বর অর্থাৎ আজকের দিনই উনি মুম্বাইতে জন্মগ্রহণ করেছিলেন আর আজও উনার বংশধরেরা রয়েছে কিন্তু কেউই উনার জন্মদিবস অথবা মৃত্যু দিবস পালন করেন না। রহুল গান্ধী তার ঠাকুমা ইন্দ্রিরা গান্ধীর জন্ম ও মৃত্যু দিবস পালন করলেও তার দাদু ফিরোজ খান/ গান্ধীর জন্মমৃত্যু দিবস পালন করেন না। ফিরোজ খান/ গান্ধী কোনো সামান্য ব্যাক্তি ছিলেন না , উনার স্ত্রী , শশুর মশাই, পুত্র সকলেই ভারতবর্ষের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

 

এমনকি উনার বউমা সোনিয়া গান্ধী বহু বছর ধরে ভারতের শাসন ক্ষমতা নিজের হাতে রেখেছিলেন। এমন একজন বড় ব্যাক্তি হওয়া সত্ত্বেও আজ রাহুল , সোনিয়া বা প্রিয়াঙ্কা কেউই উনাকে শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাচ্ছেন না। তবে শুধু আজ নয়, কয়েকদিন আগে ৯ সেপ্টেম্বর উনার মৃত্যু দিবস ছিল সেই দিনেও উনার পরিবারের কেউ উনাকে স্মরণ করেননি। আজও ইলাহাবাদে ফিরোজ বাবুর কবর রয়েছে কিন্তু উনার পরিবারের কেউ উনাকে স্মরণ করার জন্য উপস্থিত হন না কবরস্থলে। প্রসঙ্গত, ফিরোজ খানকে(গান্ধী)একজন মুসলিম ধর্মালম্বী ব্যাক্তি হলেও উনার নাতি,নাতনি নিজেদের হিন্দু বলেই দাবি করেন।

 

রাহুল গান্ধী নিজেকে পৈতেধারী ব্রাহ্মহন বলে দাবি করেন। অন্যদিকে প্রিয়াঙ্কা ভাদ্রা নিজেকে হিন্দু বলে প্রচার করলেও উনার ছেলে মেয়ের জন্য উনি ইসলামিক নাম রেখেছেন যা নিয়ে বহুজন প্রশ্ন তোলে। আবার সোনিয়া গান্ধী আসল নাম এন্টোনিয়া মিয়ানো বলে জানা গেছে কিছুদিন আগেই উনি ভারতে নিজের অন্য নামে পরিচিত। বিজেপি সাংসদ সুব্রামানিয়াম স্বামী দাবি করেছিলেন রাহুল গান্ধীর আসল নাম রল ভিঞ্চ আর এই নামে ইতালিতে উনার ব্যাঙ্কের খাতাও রয়েছে।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *