বিতর্কের মধ্যেই অযোধ্যায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় রামমূর্তি গড়ছে বিজেপি।

বিতর্কের মধ্যেই অযোধ্যায় বিশ্বের সবচেয়ে বড় রামমূর্তি গড়ছে বিজেপি।

 

কলকাতা: বিশ্বের সবচেয়ে বড় রামমূর্তি গড়তে চলেছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ৷ সম্ভবত: সেই রামমূর্তির উচ্চতা হবে প্রায় ১০০ মিটারের কাছাকাছি৷ অযোধ্যায় সরযু নদীর তীরে এই রামমূর্তি গড়ে তোলা হবে৷ ২০১৯ এর লোকসভা ভোটের আগে এবার হিন্দুদের কাছে নতুন চমক নিয়ে আসছে উত্তরপ্রদেশ সরকার৷ জনগণের টাকা খরচ করে গুজরাতে বল্লভভাই প্যাটেলের মূর্তির পর এবার অযোধ্যায় রামমূর্তি গড়া নিয়ে ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে জোর বিতর্ক৷

অযোধ্যায় বাবরি মসজিদ ও রাম মন্দির নিয়ে বিতর্ক বহূদিনের৷ বহূ বছর ধরেই চলে আসছে এই বিতর্ক৷ হয়েছে হিংসাত্বক কার্যকলাপ, ছড়িয়েছে উত্তেজনাও৷ হস্তক্ষেপ করতে হয়েছে সুপ্রিম কোর্টকেও৷ এবার সেই অযোধ্যাতেই সরযু নদীর তীরে প্রায় ১০০ মিটার লম্বা রামের মূর্তি বানাতে প্রস্তুত যোগী আদিত্যনাথ সরকার৷

যোগী সরকার যে ‘নয়া অযোধ্যা’ বানাতে চলেছেন, এই রামমূর্তি তার সবচেয়ে বড় অংশ হবে বলে মনে করা হচ্ছে৷ উত্তরপ্রদেশের রাজ্যপাল রাম নায়েককে এই নিয়ে একটা ভিডিও প্রেজেন্টেশেনও দেখিয়েছে রাজ্য পর্যটন দফতর৷ পর্যটন দফতরের তরফ থেকে এই মূর্তিকে ধর্মীয় পর্যটনের একটা অংশ বলেই দেখান হয়েছে৷

রাজ্যপাল রাম নায়েককে দেখান ভিডিও প্রেজেন্টেশনে রামমূর্তির উচ্চতা ১০০ মিটার দেখান হয়েছে৷ তবে, সরকারি মতে এটা এখনও ফাইন্যাল নয়৷ ছোট-বড় হতেই পারে৷ উত্তরপ্রদেশ রাজভবন থেকে সূত্রে জানান হয়েছে যে, এই ভিডিও প্রেজেন্টেশনটি রাজ্যপালকে দেখান রাজ্যের পর্যটন দফতরের মুখ্যসচিব অবনীশ কুমার৷

ন্যাশান্যাল গ্রীণ ট্রাইবুন্যালের ছাড়পত্র পেলেই সরযু নদীর তীরে সরযুঘাটে গড়ে উঠবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় রামমূর্তি৷ মুখ্যসচিব অবনীশ কুমার সংবাদমাধ্যমকে জানান, ‘রাজ্য সরকারের পর্যটন দফতর থেকে পরিকল্পনা তৈরি হয়েছে৷ রাজ্যপালের সম্মতির পর তা ‘নো অবজেকশন’ সার্টিফিকেট নিতে পাঠান হবে ন্যাশান্যাল গ্রীণ ট্রাইবুন্যালে৷

ইতিমধ্যেই অযোধ্যায় সরযু নদীর তীরে ‘রামকথা গ্যালারি’ গড়ে তোলার একটা বড় পরিকল্পনা নিয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার৷ যেখানে থাকবে একটি বড় অডিটরিয়াম এবং মানুষকে রাম-কথা জানানোর জন্য বিভিন্ন মাধ্যম৷ রামকথা গ্যালারি গড়ে তোলার ডিটেলস প্রজেক্ট রিপোর্ট বা DPR আগেই কেন্দ্রীয় পর্যটন দফতরে জমা দিয়েছে উত্তরপ্রদেশ সরকার৷ সেই প্রজেক্ট রিপোর্টে রামকথা গ্যালারি গড়ে তোলার জন্য বাজেট দেখান হয়েছে প্রায় ১৯৫ কোটি ৮৯ লক্ষ টাকা৷ ইতিমধ্যেই ১৩৩ কোটি ৭০ লক্ষ টাকা কেন্দ্রীয় সরকার দিয়েছে উত্তরপ্রদেশ রাজ্য পর্যটন দপ্তরকে৷

রামমূর্তি প্রজেক্টকেও এই রাম-কথা গ্যালারির অংশ হিসাবেই গড়ে তোলা হবে জানা গেছে৷ আগামী ১৮ ই অক্টোবর বাবরি মসজিদের বিতর্কিত জমি থেকে ২ কিলোমিটারের মধ্যেই একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন রাজ্যপাল রাম নায়েক, মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ সহ অন্যান্যরা৷ রামের রাজ্যাভিষেকের জন্য অযোধ্যায় ফিরে আসার ঘটনাকে স্মরণ করেই এই বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে৷ ওইদিনই রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রী অযোধ্যার উন্নয়ন বিষয়ক বিভিন্ন শিলান্যাস করবেন৷ তার মধ্যে রামকথা গ্যালারির বিভিন্ন পরিকল্পনাও থাকছে৷ ওইদিন সরযু নদীর তীরে একটি নতুন ঘাটে রাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রী সন্ধ্যারতিও করবেন বলে ঠিক আছে৷

সম্ভবত: ওই দিনই জনগণের উদ্দেশ্যে রামমূর্তি তৈরির পরিকল্পনার কথা ঘোষণাও করতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ৷ ইতিমধ্যেই বিজেপি ও হিন্দু সংস্থাগুলিতে বিশ্বের সবচেয়ে বড় রামমূর্তি তৈরির খবরে তুমুল উন্মাদনার সৃষ্টি হয়েছে৷ তবে, রাজ্যের বিরোধী দলগুলি সমালোচনাও শুরু করে দিয়েছে৷ জনগণের করের টাকায় যোগী হিন্দুত্বের রাজনীতি করছেন বলেই বিরোধীদের অভিযোগ৷

এর আগেও গুজরাতে Statue Of Unity র নামে নর্মদা নদীর তীরে সর্দার বল্লভভাই প্যাটালের ১৮২ মিটার উঁচু মূর্তি গড়াকে কেন্দ্র করে বিরোধীদের সমালোচনার মুখে পড়েছিল বিজেপি৷ এবারও রামমূর্তি গড়ার পরিকল্পনা শুনেই শুরু হয়েছে তুমুল সমালোচনা৷ একের পর এক মূর্তি গড়ে জনগণের করের টাকা নয়ছয় করার অভিযোগ এনেছে রাজ্যের বিরোধী দলগুলি৷

তবে, বিরোধীদের অভিযোগ যাই থাকুক, গুজরাটের নর্মদা নদীর তীরে সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের মূর্তির মতই অযোধ্যায় সরযু নদীর তীরে রামমূর্তিও আগামীদিনে সব আলোচনার কেন্দ্রবিন্দু হতে চলেছে তা বলাই যায়৷ দুই মূর্তিকে কেন্দ্র করে ২০১৯ এর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি কতটা ফায়দা তুলতে পারে সেটাই এখন দেখার৷

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *