ভারতের বিরুদ্ধে লাগাতার জঙ্গি মদত দিতে অভ্যস্ত যে দেশ,সীমান্তের একের পর এক প্রদেশ হাতছাড়া হচ্ছে পাকিস্তানের। 

ভারতের বিরুদ্ধে লাগাতার জঙ্গি মদত দিতে অভ্যস্ত যে দেশ,সীমান্তের একের পর এক প্রদেশ হাতছাড়া হচ্ছে পাকিস্তানের। 

 

পেশোয়ার: ভারতের বিরুদ্ধে লাগাতার জঙ্গি মদত দিতে অভ্যস্ত যে দেশ, সেই পাকিস্তানেরই হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছে পশ্চিম অংশের একের পর এক প্রদেশ।  স্থানীয় বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম দাবি করেছে, পাক-আফগান সীমান্ত সংলগ্ন অঞ্চলের প্রায় তিনটি প্রদেশের দখল নিয়েছে আইএস জঙ্গিরা। এখানেই নিজেদের সংগঠন বাড়াচ্ছে তারা। মনে করা হচ্ছে, দক্ষিণ এশিয়ায় এই অঞ্চলই আইসের জন্মভূমি হয়ে উঠছে। এমনকী এই অঞ্চলেই নিজেদের জেহাদি শিবির বানিয়ে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে তারা।

পত্রিকা সূত্রে খবর, ডুরাণ্ড লাইনের হোয়াইট মাউন্টেন অঞ্চলই জঙ্গিদের চারণভূমি হয়ে উঠেছে। এমনকী তালিবানি জঙ্গিরা হয় আইএসের সঙ্গে মিশে গিয়েছে নয় ওই অঞ্চল ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়েছে। আফগানিস্তান সরকারেরও হাতছাড়া হয়ে গিয়েছে বেশকিছু অঞ্চল। প্রায় ২০ হাজার আফগান নাগরিককে ওই অঞ্চল থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। জঙ্গিদের সঙ্গে সমঝোতায় রাজি না হওয়ায় বেশকিছু মানুষ আবার খুনও হয়েছেন। নাগারা প্রদেশ ও ফাতায় সবচাইতে বেশি জঙ্গি তৎপরতা দেখা গিয়েছে।

বিভিন্ন সূত্র থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ডন পত্রিকা দাবি করেছে তেহরিক-ই-তালিবান-পাকিস্তান আইএসের জন্য বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠন ভাঙিয়ে লোক আনছে। সবমিলিয়ে বর্তমানে পাকিস্তানের পশ্চিমাংশের সবথেকে বড় জঙ্গি চ্যালেঞ্জ তালিবান নয় আইএস। উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই পাকিস্তানের পশ্চিমাংশে বিমান হানা চালিয়েছে নওয়াজ শরিফের প্রশাসন। সেই ঘটনার পরে এখনও তেমন কোনও বড় নাশকতা ঘটেনি পাকিস্তানে। তবে অনেকেই যেকোনও মুহূর্তে বিপদ ঘটতে পারে বলে প্রমোদ গুনছেন।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *