রামমন্দির নির্মাণের পথ প্রশস্থ হলো! রাম মন্দির নির্মাণে সুপিম কোর্টে হিন্দুপক্ষের বড়ো জয়।

রামমন্দির নির্মাণের পথ প্রশস্থ হলো! রাম মন্দির নির্মাণে সুপিম কোর্টে হিন্দুপক্ষের বড়ো জয়।

 

আজ ভারতের জন্য একটা বড়ো দিন, আজ অযোধ্যা মামলার সাথে জুড়ে থাকা কেসে রামভক্তদের বড়ো জয় হয়েছে। এবার দেশ রাম মন্দির নির্মাণের দিকে আরো একধাপ এগিয়ে চললো। সুপ্রিম কোর্ট আজ খুব গুরুত্বপূর্ণ একটা রায় শুনিয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট ইসমাইল ফারুকী কেসে রায় শুনিয়েছে যে মসজিদ ইসলামের নামাজের জন্য প্রয়োজন নয়। সুপ্রিম কোর্ট এই রায় দশক আগে ১৯৯৪ সালে দিয়েছিল কিন্তু ৩ জাজের বেঞ্চে আবার শুনানি হয় যে পুরানো সিদ্ধান্তকে বড়ো বেঞ্চের কাছে পাঠানো হবে কিনা। ৩ জাজের বেঞ্চের মধ্যে জাজ দীপক মিশ্র, জাজ অশোক ভূষণ ও জাজ নাজির সামিল ছিলেন।

 

৩ জনের মধ্যে ২ জন জাজ বলেন যে ১৯৯৪ সালে দেওয়া রায় ঠিক আছে অর্থাৎ নামাজ পড়া ইসলামের অভিন্ন অংশ নয়। ২ জন জাজ বলেন এই মামলাকে বড়ো বেঞ্চের কাছে পাঠানো ঠিক নয়। একমাত্র জাজ নাজির বলেন শুনানির জন্য এটা বড়ো বেঞ্চের কাছে পাঠানো হোক। এই কেস অযোধ্যা মামলার সাথে জুড়ে রয়েছে। কারণ অযোধ্যা মামলায় মুলসিম পক্ষ দাবি করেছিল যে মসজিদ ইসলামে নামাজের অভিন্ন অংশ।

 

অর্থাৎ এই সিধান্ত অযোধ্যা মামলার ক্ষেত্রে লাগু হবে। হিন্দু পক্ষ অযোধ্যা মামলায় আদালতকে জানিয়েছিল যে মসজিদ ইসলামে নামাজের প্রয়োজনীয় অংশ নয়।মসজিদকে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে স্থান্তরণ করা সম্ভব। এবার সুপ্রিম কোর্ট অযোধ্যা মামলার শুনানি ২৯ অক্টোবর হবে। একইসাথে আগের মতো অযোধ্যা মামলার শুনানি ৩ জাজের বেঞ্চের কাছেই হবে। এখানে কোনো বড় বেঞ্চ গঠন করা হবে না।
আজ ইসমাইল ফারুকী কেসে এটা পরিষ্কার হয়ে গেছে যে মসজিদ ইসলামে নামাজের প্রয়োনজনীয় অংশ নয়। এবার এই রায়ের সম্পুর্ন লাভ অযোধ্যা কেসে হিন্দুপক্ষ পাবে। সুব্রামানিয়াম স্বামী বলেন, এবার আমরা ভগবান রামের জন্য মন্দির তৈরির পথে অনেকটা এগিয়ে গেছি। উনি বলেন, এবার আর সংসদের প্রয়োজন নেই , আদালত এবার রাম মন্দির তৈরির অনুমতি দেবে।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *