হরিবোল হরিবোল এবারও ফুটলো নানীর ঢোল,  ফের হাইকোর্টে হার তৃণমূলের, জিতলো হিন্দুত্ববাদ,

হরিবোল হরিবোল এবারও ফুটলো নানীর ঢোল,  ফের হাইকোর্টে হার তৃণমূলের, জিতলো হিন্দুত্ববাদ,

 

ওয়েবডেস্কঃ- কথায় বলে নেড়া একবারই বেলতলায় জায়, কিন্তু গতবার হাইকোর্টে নিজের মুখ পোড়ানোড় পর এবারও একই পথে হেটেছিল রাজ্য সরকার। রাজ্যের ৭০% হিন্দুর ভাবাবেগে আঘাত দিয়ে মহরমের অজুহাত দেখিয়ে দশমীর পরের দিন বিসর্জন হবেনা বলে তুঘলকি ফরমান জারি করেছিল সরকার। এর পরেই মামলা করা হয় হাই কোর্টে। আজ ছিল সে মামলার রায় ঘোষণা। আদালত রায়ে বলে, দশমী থেকে রোজ রাত ১২টা পর্যন্ত বিসর্জন দেওয়া যাবে। সব দিনেই বিসর্জন দেওয়া যাবে। তবে রাত ১২টার মধ্যে ঘাটে পৌঁছাতে হবে বিসর্জন দিতে গেলে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকার বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়েছিল, দশমীর দিন (৩০ সেপ্টেম্বর, শনিবার) রাত ১০টা পর্যন্ত বিসর্জন করা যাবে। তার পরের দিন অর্থাৎ রবিবার (১ অক্টোবর) একাদশীর দিন মহরম পড়েছে। ওই দিন কোনও বিসর্জন করা যাবে না। তবে এর বিরুদ্ধে মামলা যে হবে এবং আদালতের রায়ও যে তাদের বিরুদ্ধে যাবে সেটাও ভালো করে জানতো মমতা ব্যানার্জীর সরকার। আজ আদালত জানিয়েছে, কোন পথ দিয়ে বিসর্জন ও কোন পথ দিয়ে মহরমের মিছিল যাবে, তা ঠিক করে দেবে পুলিশ। এর আগে বৃহস্পতিবার ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ শুনানি চলাকালীন তাঁদের পর্যবেক্ষণে বলে, রাজ্য তার ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারে। কিন্তু আমরা ক্ষমতার যথেচ্ছ প্রয়োগের অনুমতি দিতে পারি না। আদালত বলে, রাজ্য সরকারকে ধাপে ধাপে এগোতে হবে। কোনও জমায়েত থেকে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির সৃষ্টি হলে, প্রথমে জলকামান ব্যবহার করতে হবে। তার পরে প্রয়োজনে মৃদু লাঠিচার্জ। কিন্তু প্রথমেই গুলি চালাতে পারে না সরকার। বিচারপতিদের মতে, বিসর্জনের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে প্রথমেই চূড়ান্ত পদক্ষেপ নিয়ে নিচ্ছে রাজ্য সরকার। রাজ্য সরকারী আইনজীবীর উদ্দেশ্যে বিচারপতি বলেন, আপনারা তো খুবই ক্ষমতাবান, কিন্তু ক্যালেন্ডারকে কি থামাতে পারবেন? চাঁদের গতি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন? আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির কথা অনুমান করে এই ধরনের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা যায় না বলেও মন্তব্য করেছিলেন বিচারপতিরা। তবে আজকের এই রায়ে শুধু বাঙালী না, খুশি আপামোর ভারতবাসী। কারণ যেই মুসলিমদের দোহাই দিয়ে সরকার এই পদক্ষেপ নিয়েছিল, তাদের বেশীরভাগই এই সির্দ্ধান্তকে সমর্থন করেনি।

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *