হিন্দুদের তাড়ানোর পরিকল্পনা চলছে : না.গঞ্জে জাগো হিন্দু পরিষদ।

হিন্দুদের তাড়ানোর পরিকল্পনা চলছে : না.গঞ্জে জাগো হিন্দু পরিষদ।

 

হিন্দু নিউজ :  রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার হরকলি ঠাকুরপাড়া রুপগঞ্জ ও কায়েত পাড়া ইউনিয়নের গজারীয়া  গ্রাম সহ সারা দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি ঘর জবর দখল করে একদল লোভী আবাসনের নামে রাস্টিয় প্রভাবশালীরা ভুমি দস্যু কারী ও বাড়ীঘর পুড়িয়ে দেওয়ার প্রতিবাদে নারায়ণগঞ্জে মানবববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতারা। এসময় বিচারহীনতার কারণে একের পর এক সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতন করা হচ্ছে অভিযোগ এনে সরকারের সমালোচনা করেন। একই সঙ্গে ঘটনার তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে বক্তারা দোষীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তি দাবি করেন।

১৩ নভেম্বর সোমবার সকাল সাড়ে ১১টায় শহরের চাষাঢ়ায় নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে জাগো হিন্দু পরিষদ (জেএইচপি) নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে ওই মানববন্ধনে বক্তারা এসব কথা বলেন। এর আগে সকাল ১০টায় শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কে দোষীদের গ্রেপ্তার ও শাস্তির দাবিতে তারা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। যা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে প্রেসক্লাবের সামনে এসে শেষ হয়।

 

 

রুপগঞ্জ থানার কায়েত পাড়া ইউনিয়নের গজারীয় 

বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ ও খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সভাপতি লিটন চন্দ্র পাল বলেন, ন্যাক্কারজনক ঘটনার সুষ্ঠু বিচার হচ্ছে না বলেই একের পর এক ঘটনা ঘটে চলেছে। হিন্দুদের নামে ফেসবুক আইডি খুলে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে দেশ থেকে বিতাড়িতকরণের দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। আজ সংখ্যালঘুদের উপর হামলা করা হচ্ছে যখন দেশ থেকে সংখ্যালঘু চলে যাবে তখন তারা নিজেদের উপর হামলা করবে। পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের দিকে তাঁকালে সেটা বুঝা যায়। কারণ সেখানে সংখ্যালঘু নেই কিন্তু বাড়ি ঘরে, মসজিদে হামলা করা হচ্ছে। উগ্রধর্মান্ধতা যে দেশগুলোতে নেই সেগুলো এগিয়ে গেছে আর উগ্রধর্মান্ধতা নিয়ে যে দেশ আছে তাদের উন্নতি হয় না। তাই অবিলম্বে দোষীদের গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করুন। অন্যথায় দেশের জন্য অমঙ্গল হবে।’

 

এছাড়াও বক্তারা বলেন, ‘সরকার কঠোর পদক্ষেপ না নেওয়ায় একের পর এক ন্যাক্কারজনক হামলা চালিয়ে যাচ্ছে। সরকারের বিচারহীনতার সংস্কৃতিতে অপরাধীরা উৎসাহী হয়ে উঠছে। সরকার ফেইসবুকের উপর নজরদারী করছেন তাহলে কিভাবে ফেইসবুকে ফেইক আইডি খুলে ধর্ম অবমাননাকর মন্তব্য করে। কেন সরকার এসকল দোষীদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করছে না। অবিলম্বে সরকার এসকল দোষীদের গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তি দেওয়া হোক যাতে ভবিষ্যতে কেউ ধরনের ঘটনা না ঘটাতে পারে।

জাগো হিন্দু পরিষদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি কৃষ্ণ দাস কাজলের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন গণসংহতি আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সভাপতি অঞ্জন দাস, নারী সংহতি নারায়ণগঞ্জ জেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পপি রাণী সরকার, হিউম্যান রাইটস সোসাইটি নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল বাতেন, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ নারায়ণগঞ্জ মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষ্ণ আচার্য, সমাজ সেবক অসীম কুমার রায়, সংগঠনের সহ সভাপতি আজয় সূত্রধর, সাধারণ সম্পাদক সুজন দাস, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অভি রায়, ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক প্রদীপ দাস, সহ ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক রিপন দাস, শিক্ষা ও সংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক নিবাস নিলয়,বীরবল রায়, রতন হালদার, হৃদয় দাস, সাগর দাস, আবীর ঘোষ, পঙ্কজ মন্ডল, সোনারগাঁ থানার সহ সভাপতি সুমিত রায়, সাধারণ সম্পাদক টিপু বনিক, ফতুল্লা থানার সভাপতি সঞ্জিব মন্ডল, চন্দন দে প্রমুখ।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *