হিন্দুরা বিদেশী অনুপ্রবেশকারী, আমরা হিন্দুদের উপড়ে ফেলবো” – খ্রিস্টান নেতা।

হিন্দুরা বিদেশী অনুপ্রবেশকারী, আমরা হিন্দুদের উপড়ে ফেলবো” – খ্রিস্টান নেতা।

 

 

নিউজ ডেস্ক ; এই দেশে হিন্দুদের স্থিতি কোথায় গিয়ে পৌঁছেছে তা মিডিয়া লাগাতার জনগণের কাছে থেকে লুকিয়ে এসেছে আর এখন লুকিয়ে যাচ্ছে। তথাকথিত ধর্মনিরপেক্ষতার ঘুম হিন্দুদের উপর এমনভাবে চড়াও হয়েছে যে তার থেকে বেরিয়ে আসতে পারছে না। কাল অবধি আকবরউদ্দিন ওয়েসী মতো কট্টরপন্থী, ১৫ মিনিট পুলিশ সরালে হিন্দু শেষ করে দেওয়ার হুমকি দিচ্ছিল এখন খ্রিষ্টান কট্টরপন্থীদের সংখ্যা এমন বেড়েছে যে তারাও খোলাখুলি হিন্দুদের হুমকি দিতে শুরু করেছে। বহুবছর ধরে তামিলনাড়ুতে তথাকথিত সেকুলারিজম ঢুকিয়ে দেওয়া হচ্ছে এবং ধর্মনিরপেক্ষতার আড়ালে ব্যাপক হারে ধর্মান্তরণ করা হয়েছে। তামিলনাড়ুতে দেশের সবথেকে বেশি মন্দির রয়েছে কিন্তু যেহেতু হিন্দুদের মধ্যে সেকুলারিজমের ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে তাই এখন তামিলনাড়ুতে খোলাখুলি গালি দেওয়া সামান্য ব্যাপার আর এই ক্ষেত্রে হিন্দু নামধারী ব্যাক্তিদের সমর্থনও সহজে পাওয়া যায়।

তথাকথিত সেকুলারিজম হিন্দুদের অবস্থা এমন করেছে যে এখন তামিলনাড়ুতে হিন্দুদের নাম টাই অস্তিত রয়েছে। তামিলনাড়ুকে ইসলামিক রাজ্য করা হবে নাকি খ্রিস্টান রাজ্য করা হবে এই নিয়ে দুই ধর্মের কট্টরপন্থীদের মধ্যে রেস শুরু হয়ে গিয়েছে। সম্প্রতি তামিলনাড়ুর রাজধানী শহর চেন্নাইতে দাঁড়িয়ে খ্রিষ্টান নেতা হিন্দুদের হুমকি দিতে শুরু করেছে। যার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ ভাইরাল হয়ে রয়েছে। এই খ্রিস্টান নেতা চেন্নাইতে দাঁড়িয়ে বলেছে, “হিন্দুরা বিদেশী, হিন্দুরা বাইরে থেকে ভারতে প্রবেশ করেছে। আমরা এখানকার আসল বাসিন্দা এবং আমরা খ্রিস্টান।

আমরা হিন্দু আতঙ্কবাদীকে চ্যালেঞ্জ জানাতে চাই যে তাদের আমরা হারিয়ে দেব যারা এখানে হিন্দু শাসন চালাতে চাই। আমরা এখন শক্তিশালী হয়েগেছি আর এবার রাজনৈতিক শক্তিকে দখল করবো।” আপনাদের জানিয়ে দি, কিছুদিন আগে তামিলনাড়ুর এক খ্রিষ্টান ধর্মগুরু ভারতকে খ্রিস্টানদের দেশ বলে দাবি করেছিল,হিন্দু ধর্ম মাত্র ২০০ বছর পুরানো বলে দাবি করেছিল এই খ্রিস্টান ধর্মগুরু। শুধু এই নয় বিগত সপ্তাহে এক খ্রিস্টান ধর্মগুরু হিন্দু মন্দিরগুলোকে শয়তানের ঘর বলে আখ্যা দিয়ে ছিলেন।

সেকুলারিজমের ঘুম হিন্দুদের এমনভাবে ঘোর করে দিয়েছে যে আগত দিনে ধর্মের নামে দক্ষিণ ভারতকে, আলাদা করার দাবি উঠলেও হিন্দুদের ঘুম ভাঙবে না। প্রসঙ্গত জানিয়ে দি, কেরালায় এখন এমন কয়েকটি জেলা রয়েছে যেখানে হিন্দুরা সংখ্যালঘুতে পরিনত হয়েছে এবং সেখানে কট্টরপন্থীদের দাপট এতটাই বেশি যে পুলিশ পর্যন্ত সেখানে প্রবেশ করতে ভয় পায়। উল্লেখ বিষয়, মিডিয়ার কাছে এই সমস্ত খবর আসে কিন্তু দেশের মিডিয়া বিদেশি খ্রিষ্টানের টাকাতেই ফুলেফেঁপে উঠে যার জন্য এদের বিরুদ্ধে টু শব্দ করতে পারে না ।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *