কর্ণফুলীর পাড়ে কাম বাঁধ প্রকল্পের অাওতায় ৩ টি মন্দির পরার অাশংকা

সত্যজিৎ চৌধুরী: কর্ণফুলীর পাড়ে সড়ক কাম বাঁধ নির্মাণ কালুরঘাট ব্রীজ থেকে চাক্তাই পর্যন্ত ইতিমধ্যে টেন্ডার পাস হয়ে নভেম্বরে কাজ শুরু হবে। বাঁধটি হবে নদীর পাড় থেকে ৮০ ফুট পর্যন্ত ও ২৪ ফুট উচু। কালুরঘাট থেকে হালদা ব্রীজ পর্যন্ত এটি ২য় পর্যায়ে হবে।

এখন কথা হল, কালুরঘাট এর হিন্দুদের নদীর পারে তিনটি মন্দির বর্তমানে অাছে যা সরকার নির্ধারিত ৮০ ফুট সীমানায় পরে। এগুলো শতবর্ষ পুরনো মন্দির। একটি শ্রীমৎ স্বামী তারানন্দ মহাকালী যোগাশ্রম। যাহা বর্তমানে কোটি টাকা ব্যায়ে নতুন মন্দির নির্মাণ করা হয়েছে। অাধ্যাত্মিক ও সাধনমার্গের জন্য খুব সুপরিচিত খ্যাতিনামা একটি মন্দির। নদীর পাড়ে অবস্থিত এই মন্দিরকে অনেকে দক্ষিনেশ্বর মন্দির ও বলে থাকে, অাবার অনেকে স্বর্ণ মন্দির ও বলে। দ্বিতীয়টি অাদি জগন্নাথ মন্দির ১৯১৮ সালে প্রতিষ্ঠিত এই মন্দিরে সেকাল থেকে এখনো পর্যন্ত মহাসমারোহে রথযাত্রা হয়ে থাকে। জগন্নাথ মন্দিরের জগন্নাথ, সুভদ্রা ও বলরাম প্রতিদিন সেবা অর্চনা করা হয় এবং অতি পুরাতন বলে চট্টগ্রামে এই রথযাত্রার বিশেষ খ্যাতি এখন বিদ্যমান। তৃতীয়টি, ক্ষেত্রপাল মন্দির। প্রতিবছর চৈত্র মাসের শেষ দিন এখানে বিশেষ পূজাঅর্চনার অায়োজন করা হয়। মহাসমারোহে হাজার হাজার ভক্তরা এখানে উপস্থিত হয়। সরকার কর্তৃক কাম বাঁধ নির্মাণ যদি শুরু হয়, তাহলে এই তিনটি মন্দির ভূমি অধিগ্রহণ সীমানা ৮০ ফুট এর মধ্যে রয়েছে। তাই সরকার ও বাঁধ প্রকল্প কার্য সম্পাদনকারী নিকট বিনিত নিবেদন, এই তিনটি মন্দির ক্ষতির সম্মুখীন যাতে না হয় অাপনারা ঐই ভাবে প্রকল্প ম্যাপ পরিকল্পনা করুন। কালুরঘাটের হিন্দু মন্দিরগুলোর শতবর্ষ পুরনো ঐতিহ্য ও কৃষ্টি রক্ষায় উক্ত কাম বাঁধ প্রজেক্টের সাথে সংশ্লিষ্ট সকলকে অনুরোধ করা হল।

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *