NRC চাই পশ্চিমবঙ্গেও, দাবি বিশ্ব হিন্দু পরিষদের, শুরু হচ্ছে ঘর ওয়াপসি,,

 

NRC চাই পশ্চিমবঙ্গেও, দাবি বিশ্ব হিন্দু পরিষদের, শুরু হচ্ছে ঘর ওয়াপসি,,

 

 Hindus.news

এরাজ্যে নাগরিক পঞ্জিকরণের দাবির পাশাপাশি এবার ঘর ওয়াপসি নিয়ে তেড়েফুঁড়ে নামছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। শাখা সংগঠনগুলো নিয়ে ফের ধর্মান্তকরণ করার উদ্ধোগ নিচ্ছে।

 

বিজেপির পর এই রাজ্যে এন আর সি তালিকা তৈরির দাবি করল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। ভি এইচ পি রাজ্য কমিটির দাবি, আসাম থেকেও এই রাজ্যে অনুপ্রবেশকারীর সংখ্যা অনেক বেশি। তাদের চিহ্নিত করে এখান থেকে বিতাড়ন করতে হবে।

শুধু তাই নয়, ফের ঘর ওয়াপসি অর্থাৎ যাঁরা হিন্দু ধর্ম থেকে ধর্মান্তরিত  হয়েছেন, তাঁদের আবার হিন্দু ধর্মে ফেরানোর প্রক্রিয়া শুরু করবে পরিষদ। রাজ্য ব্যাপী ঘর ওয়াপসি কর্মসূচি নিচ্ছে তারা।

একই সঙ্গে রাজ্যে লাভ জেহাদ ও লেন্ড জেহাদ রুখতে নতুন করে কর্মসূচি গ্রহণ করতে চলেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

বুধবার রাজ্য দফতরে সাংবাদিক বৈঠকে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের ক্ষেত্র সংগঠন সম্পাদক শচীন্দ্রনাথ সিংহ দাবি করেন, “আসামের নাগরিক পঞ্জিকরণ নিয়ে ঘোলা জলে মাছ ধরতে নেমে পড়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। এসব না করে এই রাজ্যেও এনআরসি প্রক্রিয়া শুরু করুক রাজ্য সরকার। এখানে অনুপ্রবেশকারী মুসলিমদের ভোট ব্যাংক হিসাবে ব্যাবহার করা হচ্ছে। পাশাপাশি সমাজে বিভিন্ন ধরনের জেহাদি কার্যকলাপ বাড়ছে।’’

 

দুদিন আগেই বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন, তাঁরা ক্ষমতায় এলে পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি চালু করবেন। একই কথা শোনা গেছে এ রাজ্যে বিজেপি-র দায়িত্বে থাকা কৈলাশ বিজয়বর্গীয়র মুখে। শধু তাই নয়, বিজেপি-র সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহও পশ্চিমবঙ্গে এন আর সি-র কথা তুলেছেন।

আসামের এন আর সি থেকে যে ৪০ লক্ষের নাম বাদ গেছে তার মধ্যে রয়েছেন বিধায়কও। কোনও কোনও পরিবারে বয়স্ক ব্যাক্তিও বাদ গিয়েছেন তালিকা থেকে। তালিকায় অসঙ্গতি একেবারে স্পষ্ট। মতুয়ারা দাবি করেছে তাঁদের প্রায় ৩ লক্ষ সদস্যর নাম নেই তালিকায়। 

এ সব নিয়ে কথা তোলা হলে শচীন্দ্রনাথ সিং বলেন, “হিন্দু শরণার্থীদের বিতাড়নের কোনও প্রশ্ন নেই। তাদের নাগরিকত্ব দিতে হবে। পাশাপাশি মতুয়া সংঘের কারও নাম বাদ গেলে তাদের নাম তুলতে হবে তালিকায়। তবে যারা অনুপ্রবেশকারী তাঁদের চিহ্নিত করে বিতাড়িত করতেই হবে।’’ তাঁর অভিযোগ, বাঙালি খেদানো হচ্ছে বলে বাঙালি সমাজকে উসকানো হচ্ছে। বাংলাদেশিরাও তো বাংলা ভাষায় কথা বলে।

তবে এই রাজ্যে নাগরিক পঞ্জিকরণ শুধু নয়, এখানে রোহিঙ্গাদের নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বিশ্বহিন্দু পরিষদ। সংগঠন সম্পাদক দাবি করেছেন, ‘‘লোকদেখানো কয়েকজন রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আদপে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়েছে রাজ্য সরকার। এভাবে তারা সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে। এমনকি জম্মু-কাশ্মীরেও পৌঁছে গিয়েছে তারা। আগুন নিয়ে খেলছে রাজ্যে মমতা মুসলিম তোষণকারী সরকার ’’

এদিকে ফের ঘর ওয়াপসি কর্মসূচির ওপর জোর দিতে চলেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ । এর আগে ধর্মতলায় প্রকাশ্যে ওই কর্মসূচি করতে গিয়ে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়েছে। বড় ধরনের অশান্তির ঘটনা ঘটেছে। সংগঠন সম্পাদক জানান, এই কর্মসূচি রূপায়ণের জন্য একটি মঞ্চ গঠন করা হবে। সেখানে দুর্গাবাহিনী ও বজরং দলের সদস্যরা থাকবেন। পাশাপাশি কাজে লাগানো হবে মঠ-মন্দির ও ধার্মিক সংগঠনগুলোকে। বিভিন্ন কারণে যাঁরা ভিন্ন ধর্ম অবলম্বন করেছেন তাঁদের হিন্দু ধর্মে ফিরিয়ে আনা হবে।

এরাজ্যে লাভ জেহাদের বিরুদ্ধেও প্রচারে নামতে চলেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ। লাভ জেহাদ ঠেকাতে নানা ধরনের প্রচারের কর্মসূচি নিয়েছে তারা। শচীনবাবু জানান, বাড়ি বাড়ি গিয়ে প্রচার করবেন বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কর্মীরা। তাঁরা লাভ জেহাদ নিয়ে বোঝাবে মানুষকে। এছাড়া এখানে মঠ-মন্দিরের ওপর আক্রমণ হচ্ছে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে হিন্দু পরিষদ। লাভ জেহাদের পাশাপাশি লেন্ড জেহাদ চলছে বলেও তাদের দাবি।

বিশ্ব হিন্দু পরিষদের অভিযোগ, লাভ জেহাদের পাশাপাশি এ রাজ্যে সমানতালে চলছে ল্যান্ড জেহাদ। এখানে হিন্দুদের দেবউত্তর সম্পত্তি ও হিন্দুদের সম্পত্তি জোর করে দখল করে নেওয়া হচ্ছে। কোনও কোনও ক্ষেত্রে কম দামে কিনে নেওয়া হচ্ছে। এইভাবে হস্তান্তরিত হচ্ছে হিন্দু সম্পত্তি। এই ল্যান্ড জেহাদ রুখতে হবে এবং তার জন্য প্রয়োজনীয় কর্মসূচি নেবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

গত ২৮ ও ২৯ জুলাই হাওড়ার সালকিয়ায় পরিষদের বিশ্ব হিন্দু পরিষদের রাজ্যে কমিটির বৈঠক হয়। সংগঠনের পক্ষে সৌরীশ মুখোপাধ্য়ায় জানান, সারা রাজ্যে জন্মাষ্টমী উপলক্ষ্য়ে এক হাজার শোভাযাত্রা বের হবে । তাতে নানা ধরনের সুসজ্জিত থাকবে। এবারও থাকবে ‘কৃষ্ণ সাজো’ প্রতিযোগিতা।

 

 

Related posts:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *